শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৩৩ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ ::
ড্রেজার শ্রমিকের ইটের আঘাতে কুশিয়ারা নদীতে জেলে নিখোঁজ শাবিতে গভীর রাতে হাজারো শিক্ষার্থীর মশাল মিছিল শাবির ঘটনায় যেন আগুনে ঘি ঢালা না হয়-পরিকল্পনামন্ত্রী অনশন থেকে হাসপাতালে শাবির ছয় শিক্ষার্থী  ড. মোমেনকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো-বাইডেনের শুভেচ্ছা কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিদপ্তরের জরিমানা অনশনে অসুস্থ হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা, শিক্ষকদের আলোচনার প্রস্তাব নাকচ শাবির ভিসির কুরুচিপূর্ণ-অবমাননাকর বক্তব্য প্রত্যাহারে আইনি নোটিশ র‍্যাবকে শান্তিরক্ষা মিশন থেকে বাদ দিতে জাতিসংঘে চিঠি আইসিসি বর্ষসেরা একাদশে টাইগারদের দাপট ভালো পরিবেশের জন্য ভালো সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ: সেনাপ্রধান ড. মোমেনের নেতৃত্বে সিলেটে আসছে যুক্তরাজ্যের প্রতিনিধি দল খালেদা জিয়া ও খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের রোগমুক্তিতে দোয়া মাহফিল তাহিরপুরে করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে পুলিশের মাইকিং শাবিতে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে অনশন শুরু শিক্ষার্থীদের

বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ, আয়োজন যাঁদের নিয়ে তারাই `উপেক্ষিত’!

নতুন সিলেট প্রতিবেদক :
  • আপডেট : সোমবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২১
বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ, আয়োজন যাঁদের নিয়ে তারাই `উপেক্ষিত'! - Natun Sylhet

মঞ্চের সামনের সারিগুলোতে অতিথি। এরপর রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের জন্য সফেদ কাপড়ে সাজিয়ে রাখা রাজকীয় চেয়ার। আর পেছনে সাধারণ প্লাস্টিকের চেয়ারে বসতে দেওয়া জাতির শ্রেষ্ট সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে জেলা প্রশাসন আয়োজিন অনুষ্ঠানে এমন দৃশ্যের অবতারণা ঘটে।

যাদের জন্য আয়োজন, সেই বীর পেছনে রেখে সিলেটে অনুষ্ঠিত হলো বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ। বিষয়টি মুক্তিযোদ্ধাদের অনেককে ব্যতিত করেছে। উপস্থিত লোকজনও এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

সমাবেশস্থলে আসা মুক্তিযোদ্ধাদের অনেকে এমন অবস্থা দেখে চাপা ক্ষোভ রেখে উপহার পাওয়া একটি মাত্র চাদর হাতে নিয়ে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করে চলে যান।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ, আয়োজন যাঁদের নিয়ে তারাই `উপেক্ষিত'! - Natun Sylhet

অথচ সিলেট জেলা প্রশাসনের চিঠিটাই ছিল জাতির জনক ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উৎসর্গ করে। ‘সুবর্ণ জয়ের নিশান ওড়ে’, বিজয় পথে পথে। এমন স্লোগানে সিলেট জেলা প্রশাসনের ছাপানো চিঠি। অথচ সেই অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধারা ছিলেন উপেক্ষিত।

এ নিয়ে সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মহলে নিন্দার ঝড় ওঠেছে। তাৎক্ষণিকভাবে সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

এ নিয়ে সিলেট মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ইউনিটের সাবেক সভাপতি ভবতোষ বর্মণ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে জিনিস চান। অনেকে তা বুঝতে পারেন না। মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান করা মানে বঙ্গবন্ধুকে সম্মান করা। মূলত; ২৩ বছর আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতার বাইরে ছিল। তাই মানসিকতার পরিবর্তন আসতে সময় প্রয়োজন মনে করেন তিনি।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ, আয়োজন যাঁদের নিয়ে তারাই `উপেক্ষিত'! - Natun Sylhet

তবে, আজকের অনুষ্ঠানের সভাপতি জেলা প্রশাসক তাঁর চেয়ার আমাকে ছেড়ে দিয়ে একটি নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ইউনিটের সাবেক সভাপতি সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল বলেন, অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি বৈষম্য করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অনুষ্ঠান। অথচ তাদের পেছনে বসতে দেওয়া হয়েছে। জাতীয়ভাবে বৈষম্য চলছে। এটা প্রতিহত করা প্রয়োজন।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসার ড. মো. মতিয়ার রহমান হাওলাদার বলেন, এই দেশে এমন একটা সময় গেছে মুক্তিযোদ্ধারা যখাযথ সম্মান পাননি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির শ্রেষ্ট সন্তানদের সেই সম্মান দিয়েছেন। যার ধারাবাহিকতা আমরা বজায় রাখতে চাই।

তিনি প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, আপনারা মনে রাখবেন। অনেক মুক্তিযোদ্ধারা আপনার আমার মতো শিক্ষিত না। যুদ্ধকালীন সময়ে অনেক কম শিক্ষিত এবং অশিক্ষিত লোকজন দেশের জন্য অস্ত্রহাতে যুদ্ধ করেছেন। তাদের জন্যই আজ আমরা স্বাধীন দেশে এই চেয়ারে বসতে পেরেছি। সুতরাং মুক্তিযোদ্ধারা যদি কখনো যেকোনো বিষয়ে সহযোগীতার জন্য যান, আপনারা প্রাণ খোলে তাদের সহযোগীতা করবেন। মনে রাখবেন এই দেশ মুক্তিযোদ্ধাদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত।

 

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২২
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102