বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:০৭ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::
ভালো পরিবেশের জন্য ভালো সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ: সেনাপ্রধান ড. মোমেনের নেতৃত্বে সিলেটে আসছে যুক্তরাজ্যের প্রতিনিধি দল খালেদা জিয়া ও খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের রোগমুক্তিতে দোয়া মাহফিল তাহিরপুরে করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে পুলিশের মাইকিং শাবিতে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে অনশন শুরু শিক্ষার্থীদের নৌকার মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর উঠান বৈঠক সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে দূর্ঘটনায় চালক নিহত নগরীর টিলাগড়ে ভয়াবহ আগুন, দোকান পুড়ে ছাই সিলেট জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জে ছুুরিকাঘাতে যুবক খুন সিলেটে মোটরসাইকেল-সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে যুবকের মৃত্যু ভয়ঙ্কর করোনা: ঢাকাসহ ১২ জেলাকে উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা উপাচার্য পদত্যাগ না করলে আমরণ অনশন ঘোষণা শিক্ষার্থীদের  দেশে করোনায় আরও ১০ মৃত্যু, সনাক্ত ৮,৪০৭ জন যেভাবে উদঘাটন শিমু হত্যার রহস্য

সিলেট বিভাগের ৪৫ ইউনিয়নে ডুবলো নৌকা

নতুন সিলেট প্রতিবেদক:
  • আপডেট : মঙ্গলবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২১
সিলেট বিভাগের ৪৫ ইউনিয়নে ডুবলো নৌকা - Natun Sylhet

চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্পন্ন হয়েছে রোববার (২৬ ডিসেম্বর)। এদিন সিলেট জেলার ২০টিসহ বিভাগের নয় উপজেলার ৮১টি ইউপিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনার হলেও অধিকাংশ ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ হয়। গণনা পরবর্তীতে রাতে ফলাফল ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রির্টানিং কর্মকর্তারা। বেসরকারিভাবে ঘোষিত ভোটের ফলাফলে ৮১টি ইউপির ৪৫টিতে হেরেছে নৌকা।

বেশিরভাগ ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থীর কারণে, কোথাও বা প্রার্থীর জনপ্রিয়তার অভাবে এবং নেতাকর্মীর মৌণ বিরোধীতায় নৌকার ভরাডুবি হয়েছে। ফলে কয়েকটি স্থানে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অত্যাধিক কম ভোট পেয়ে জামানত হারাতে হয়েছে।

এসব ইউনিয়নের ৪৭টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী, স্বতন্ত্রের ব্যানারে বিএনপি- জামায়াত ও জাপার প্রার্থীদের দাপটেও ডুবেছে নৌকা।

উপজেলাগুলো হচ্ছে-সিলেটের বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ, সুনামগঞ্জের দিরাই, বিশ্বম্ভরপুর ও জগন্নাথপুর, মৌলভীবাজার সদর, রাজনগর, হবিগঞ্জের লাখাই, বানিয়াচং।

সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে নৌকার বিজয় এসেছে ৩টি ইউনিয়নে। বাকি ৭টির মধ্যে আওয়ামী লীগের দুটিতে বিদ্রোহী, ২টিতে স্বতন্ত্র জামায়াত, ২টিতে বিএনপির (স্বতন্ত্র) ও এক প্রবাসী প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন। গোলাপগঞ্জের চারটিতে আওয়ামী লীগ, ২টিতে বিদ্রোহী, ২টিতে জামায়ত ও দুটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হছেন।

সুনামগঞ্জের তিন উপজেলার ২১টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে ক্ষমতাসীন দলের প্রতীক নৌকা জয় পেয়েছে সাতটিতে। আর ৯টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী, চারটিতে বিএনপি এবং একটিতে জাতীয় পার্টির প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।

মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে পাঁচটিতে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী, চারটিতে আওয়ামী লীগ এবং তিনটিতে স্বতন্ত্র (বিএনপি) প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। রাজনগর উপজেলার আট ইউনিয়নের চারটিতে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী, তিনটিতে আওয়ামী লীগ এবং একটিতে স্বতন্ত্র (বিএনপি) প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।

আর হবিগঞ্জের লাখাই ও বানিয়াচং উপজেলার ২০ ইউনিয়নের ১১টিতে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও ৯টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী।

বিয়ানীবাজার: আলীনগর ইউপিতে আ.লীগের আহবাবুর রহমান খান শিশু, চারখাই ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হোসেন মুরাদ চৌধুরী, শেওলায় নৌকার প্রার্থী জহুর উদ্দিন, দুবাগে স্বতন্ত্র জালাল উদ্দিন, কুড়ারবাজারে আ.লীগ বিদ্রোহী তুতিউর রহমান তুতা, মাথিউরায় নৌকার প্রার্থী আমান উদ্দিন, তিলপাড়ায় বিএনপির স্বতন্ত্র মাহবুবুর রহমান, মুড়িয়ায় জামায়াতের ফরিদ আল মামুন, মুল্লাপুরে বিএনপির স্বতন্ত্র বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মন্নান, লাউতায় জামায়াতের স্বতন্ত্র দেলওয়ার হোসেন বিজয়ী হয়েছেন।

গোলাপগঞ্জ: উপজেলার বাঘা ইউপিতে আ.লীগের আবদুস সামাদ, গোলাপগঞ্জ সদরে  আ.লীগের তজম্মুল আলী, ফুলবাড়ীতে আ.লীগের আবদুল হানিফ খান, লক্ষীপাশায় স্বতন্ত্র আ.লীগের বিদ্রোহী মাহতাব উদ্দিন জেবুল, ঢাকাদক্ষিণে জামায়াতের স্বতন্ত্র এম আবদুর রহিম, লক্ষণাবন্দে জাতীয় পার্টি নেতা খলকুর রহমান, ভাদেশ্বরে বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীম আহমদ, আমুড়ায় আ.লীগের সৈয়দ হাছিন আহমদ মিন্টু, উত্তর বাদেপাশায় স্বতন্ত্র জামায়াত নেতা জাহিদ আহমদ ও শরীফগঞ্জে আ.লীগের বিদ্রোহী এম কবীর উদ্দিন জয়লাভ করেছেন।

মৌলভীবাজার: ১নং খলিলপুর ইউপিতে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আবু মিয়া চৌধুরী। ২নং মনুমুখ ইউপিতে আ.লীগ প্রার্থী এমদাদ হোসেন। ৩নং কামালপুর ইউপিতে আ.লীগের বিদ্রোহী আপ্পান আলী। ৪নং আপার কাগাবলা ইউপিতে আ.লীগের বিদ্রোহী ইমন মোস্তফা। ৫নং আখাইলকুড়ায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী শেখ মো. বদরুজ্জামান চুনু।৬নং একাটুনা ইউপিতে আ.লীগ মো. আবু সুফিয়ান।৭নং চাঁদনীঘাটে আ.লীগের আখতার উদ্দিন আহমদ। ৮নং কনকপুর ইউপিতে বিএনপির প্রার্থী রুবেল উদ্দিন। ৯ নং আমতৈল ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সুজিত চন্দ্র দাশ। ১০নং নাজিরাবাদ ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আশরাফ উদ্দিন আহমদ। ১১নং মোস্তফাপুর ইউপিতে আ.লীগের বিদ্রোহী মো. তাজুল ইসলাম। ১২নং গিয়াসনগরে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. মোশাররফ হোসেন টিটু বিজয়ী হয়েছেন।

রাজনগর: ফতেপুর ইউপিতে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নকুল চন্দ্র দাশ, উত্তরভাগ ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী দিগেন্দ্র চন্দ্র সরকার। মুন্সিবাজারে আ.লীগের বিদ্রোহী রাহেল হোসেন, পাঁচগাঁও ইউপিতে আ.লীগ সিরাজুল ইসলাম ছানা, রাজনগর ইউপিতে বিএনপি প্রার্থী জুবায়ের আহমদ চৌধুরী, টেংরা ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী টিপু খান, কামারচাকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী আতাউর রহমান, মনসুরনগরে আ.লীগের মিলন বখত।

বানিয়াচংয়: বানিয়াচং উপজেলার ১নং উত্তর-পূর্ব ইউপিতে মো. মিজানুর রহমান চৌধুরী, ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে মো. হায়দারুজ্জামান খান (ধন মিয়া), ৩ নংদক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নে মো. আরফান উদ্দিন, ৫নং দৌলতপুরে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মঞ্জু কুমার দাস, ৬নং কাগাপাশা ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এরশাদ আলী, ৭নং বড়ইউড়ি ইউপিতে ফরিদ আহমেদ, ৮ নম্বর খাগাউড়া ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শাহ মাসউদ কুরাইশী মাক্কী, ৯নং পুকড়া ইউনিয়নে হাফেজ শামরুল ইসলাম, ১০নং সুবিদপুর ইউনিয়নে ইঞ্জিনিয়ার জয় কুমার দাস, ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নে মো. আব্দুল আহাদ, ১২ নম্বর সুজাতপুর ইউনিয়নে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাদিকুর রহমান, ১৩ নং মন্দরী ইউনিয়নে শেখ শামছুল হক চৌধুরী, ১৪নং মুরাদপুর ইউপিতে মিজানুর রহমান মিজান বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়া ১৫ নম্বর পৈলারকান্দি ইউনিয়নে বিএনপি নেতা নাসির উদ্দিন নির্বাচিত হয়েছেন।

লাখাইয়: লাখাইয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আরিফ আহমেদ রুপন(ঘাড়া), মোড়াকরিতে আ.লীগের বিদ্রোহী আবুল কাশেম মোল্লা (মোটরসাইকেল), বামৈতে স্বতন্ত্র আজাদ হোসেন ফুরুক (ঘোড়া), বুল্লায় খোকন চন্দ্র গোপ (নৌকা), করাব ইউপিতে মো. আব্দুল কুদ্দুছ (নৌকা) ও মুড়াউক ইউপিতে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নোমান।

দিরাই: উপজেলার রফিনগর ইউপিতে আ.লীগের শৈলেন চন্দ্র তালুকদার, করিমপুরে আ.লীগের লিটন চন্দ্র দাস, জগদলে আ.লীগের হুমায়ূন রশীদ লাভলু এবং ভাটিপাড়া ইউপিতে আ.লীগ বিদ্রোহী বদরুল ইসলাম চৌধুরী মিফতা, রাজানগরে আ.লীগ বিদ্রোহী জুয়েল মিয়া, চরনারচর ইউপিতে আ.লীগ পরিতোষ রায়, ও কুলঞ্জ ইউপিতে আ.লীগ বিদ্রোহী একরার হোসেন বিজয়ী হয়েছেন।

জগন্নাথপুর: উপজেলার সাত ইউনিয়নের মধ্যে তিনটিতে আওয়ামী লীগ, তিনটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী এবং একটিতে বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এরমধ্যে কলকলিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রবাসী রফিক মিয়া, পাটলী ইউপিতে আ.লীগের আঙুর মিয়া, ছিলাউরা হলদিপুর ইউপিতে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শহিদুল ইসলাম, রানীগঞ্জে আ.লীগের শেখ ছদরুল ইসলাম, সৈয়দপুর শাহারপাড়ায় আ.লীগের আবুল হাসান, আষাঢ়কান্দিতে আ.লীগ বিদ্রোহী আয়ূব খান এবং পাইলগাঁওয়ে আ.লীগ বিদ্রোহী মখলুস মিয়া বিজয়ী হয়েছেন।

বিশ্বম্ভরপুর: উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন পরিষদের একটিতে আওয়ামী লীগ, একটিতে জাতীয় পার্টি, দুটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী একটিতে বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে সালুকাবাদে আ.লীগের নুরে আলম সিদ্দিকী, পলাশ ইউপিতে আ.লীগ বিদ্রোহী সোহেল আহমদ, ধনপুরে আ.লীগ বিদ্রোহী মো. মিলন মিয়া, দক্ষিণ বাদাঘাট ইউপিতে স্বতন্ত্র মো. ছবাব মিয়া, ফতেপুর ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির মো. ফারুক আহমদ বিজয়ী হয়েছেন।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২২
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102