শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ ::
ড্রেজার শ্রমিকের ইটের আঘাতে কুশিয়ারা নদীতে জেলে নিখোঁজ শাবিতে গভীর রাতে হাজারো শিক্ষার্থীর মশাল মিছিল শাবির ঘটনায় যেন আগুনে ঘি ঢালা না হয়-পরিকল্পনামন্ত্রী অনশন থেকে হাসপাতালে শাবির ছয় শিক্ষার্থী  ড. মোমেনকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো-বাইডেনের শুভেচ্ছা কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিদপ্তরের জরিমানা অনশনে অসুস্থ হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা, শিক্ষকদের আলোচনার প্রস্তাব নাকচ শাবির ভিসির কুরুচিপূর্ণ-অবমাননাকর বক্তব্য প্রত্যাহারে আইনি নোটিশ র‍্যাবকে শান্তিরক্ষা মিশন থেকে বাদ দিতে জাতিসংঘে চিঠি আইসিসি বর্ষসেরা একাদশে টাইগারদের দাপট ভালো পরিবেশের জন্য ভালো সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ: সেনাপ্রধান ড. মোমেনের নেতৃত্বে সিলেটে আসছে যুক্তরাজ্যের প্রতিনিধি দল খালেদা জিয়া ও খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের রোগমুক্তিতে দোয়া মাহফিল তাহিরপুরে করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে পুলিশের মাইকিং শাবিতে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে অনশন শুরু শিক্ষার্থীদের

ইউপি নির্বাচন-সেই ২ কর্মকর্তার কাছে মিললো টাকা ও মাদক!

নতুন সিলেট প্রতিবেদক:
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২২
ইউপি নির্বাচন-সেই ২ কর্মকর্তার কাছে মিললো টাকা ও মাদক! - Natun Sylhet

ভোটের মাঠে নজিরবিহীন কাণ্ড ঘটলো সিলেটের জকিগঞ্জে। বুধবার (৫ জানুয়ারি) ৫ম ধাপে ইউপি নির্বাচনে নৌকায় সীলমারা দেড় সহস্রাধিক ব্যালটসহ আটক ২ কর্মকর্তাকে।

বুধবার (০৫ জানুয়ারি) ভোট গ্রহণ চলাকালে বিকাল ৩টার দিকে তাদের আটক করা হয়। জানা গেছে, গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা প্রায় ১ হাজার ৬৫৫টি ব্যালট পেপার তাদের সরকারি গাড়ি থেকে জব্দ করে।

আটককৃতরা হলেন- কাজলসার ও বারোহালের দুই ইউনিয়নের রিটানিং কর্মকর্তা ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আরিফুল হক এবং জকিগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাচন অফিসার ও নির্বাচন সমন্বয়কারী সাদমান সাকিব। খবর পেয়ে জেলা প্রশাসকসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকতারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

আটককৃত দুই কর্মকর্তার গাড়ি থেকে জব্দকৃত ব্যালটে নৌকায়, সংরক্ষিত ও সাধারণ সদস্য পদে প্রার্থীদের মার্কায় সীল মারা ছিল। সেই সঙ্গে তাদের হেফজতে থাকা দেড় লাখ টাকার বান্ডেল, ফেনসিডিল ও ইয়াবা সেবনের উপকরণ জব্দ করে পুলিশ। উদ্ধারকৃত টাকা প্রার্থীর দেওয়া এবং তারা মাদক গ্রহণ করতেন, ধারণা পুলিশের।

এদিন রাতে নির্বাচনে স্থগিত ইউপি ব্যতীত অন্যসবগুলোর ফলাফল ঘোষণার পর রাতে ওই দুই কর্মকর্তাকে থানা হেফাজতে নেওয়া হয়। তাদের ব্যবহৃত গাড়ি তল্লাসী করে এক লাখ ২১ হাজার ৫শ’ টাকা, ১টি ফেনসিডিল, ইয়াবা সেবনের রাংচা, সিগারেটের প্যাকেট, ২টি গ্যাস লাইটার, একটি দিয়াশলাই ও সীলমারা ১ হাজার ৬৫৫টি ব্যালট জব্দ করা হয়।

এরপর রাতেই নির্বাচন কমিশনের উপ সচিব মো.আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, দুই রিটানিং অফিসার আটকের কারণে জকিগঞ্জের কাজলসার ইউনিয়নের সকল ভোট কেন্দ্রের নির্বাচন বন্ধ ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, এ দুই কর্মকর্তা নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান জুলকার নাইন লস্করকে পাস করাতে ১৪লাখ টাকার বিনিময়ে চুক্তিবদ্ধ হন। সংরক্ষিত ও সাধারণ ওয়ার্ডের নির্দিষ্ট প্রার্থীদের পাস করাতে আরো ২ লাখ টাকা করে নেন। কাজলসার ইউনিয়নের ৭টি কেন্দ্রের নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করাতে এমন অপকর্ম করতে গিয়ে ধরা পড়েন তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভোট ফিক্সিং করতে অপারগতা প্রকাশ করায় ৭টি কেন্দ্রের পূর্ব নির্ধারিত প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে ভোটের ১দিন আগেই বাদ দিয়ে দেন দুই রিটানিং কর্মকর্তা। এরপর তাদের প্রস্তাবে রাজি হওয়া কৃষি অফিসারদের প্রিসাইডিং অফিসার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। ভাগ হিসেবে প্রিসিইডিং তারা ৫০ হাজার টাকা করে পান!

এ ঘটনার পর রাতে নির্বাচন কমিশনের উপ সচিব মো.আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, জকিগঞ্জের কাজলসার ইউনিয়নে পরিষদ নির্বাচনে ২ কর্মকর্তার গাড়িতে সীলমারা ব্যালট পাওয়া যায়। রিটানিং অফিসারদ্বয়কে থানা হেফাজতে আটক রাখায় উক্ত ইউনিয়নের সকল ভোট কেন্দ্রের নির্বাচন বন্ধ ঘোষণার সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন।

এদিকে, রাত ১টার দিকে ওই দুই কর্মকর্তাকে থানা হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেন বলে জানা গেছে।

সিলেটের সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শুক্কুর মাহমুদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আটক দুই রিটানিং কর্মকর্তার ব্যবহৃত একটি গাড়ি থেকে নৌকা প্রতীকসহ সংরক্ষিত ও সাধারণ সদস্য পদে সীলমারা লুজ ব্যালট জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় কাজলসার ইউনিয়নের সব ক’টি কেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। আটকদের থানা হাজতে রাখা হয়েছে।

সিলেটের পুলিশ সুপার (এসপি) ফরিদ উদ্দিন বলেন, নির্বাচনে রির্টানিং কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা দুইজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের হেফাজতে থাকা এক হাজার ৬৫৫টি ব্যালট জব্দ করা হয়।

এ বিষয়ে পুলিশের উচ্চপদস্থ আরেক কর্মকর্তা বলেন, জব্দকৃত ব্যালট, ফেনসিডিলসহ অন্যান্য উপকরণ কৃষি কর্মকর্তার ব্যবহৃত সরকারি গাড়িতে পাওয়া যায়। ওই গাড়ি নিয়ে দুই রিটানিং কর্মকর্তা ভোট শেষ হওয়ার আগে সোয়া ৩টার দিকে কাজলশার ইউনিয়নে কেন্দ্রের দিকে যাচ্ছিলেন।

এ দুই কর্মকর্তা ফেনসিডিল ও ইয়াবা আসক্ত ছিলেন। বিশেষ করে উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন সমন্বয়কের দায়িত্বে থাকা উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটানিং কর্মকর্তা শাদমান সাকিবের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ওঠে আসে। তিনি নতুন ভোটার হওয়া থেকে শুরু করে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন, স্থানান্তরসহ সব কাজে টাকা আদায় করতেন।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত রাত ১টার দিকে জকিগঞ্জ থানায় যান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজুর রহমান। তবে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা নিয়ে নির্বাচনী কর্মকর্তা ও পুলিশের মধ্যে রশি টানাটানি চলে। তাছাড়া কোন কোন ধারায় মামলা হবে, এ নিয়েও আলোচনা হয়।

যদিও সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হওয়ার দাবি করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুমী আক্তার।

প্রসঙ্গত, বুধববার সিলেট জেলার ১৮টিসহ বিভাগের ৭৫টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২২
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102