বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::
সিলেটে উন্নয়নের নামে অর্ধশত ছায়াবৃক্ষ কাটলো সিসিক সিলেটে ৪ দিনের সফরে আসছেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ‘দেশের ইমেজ নষ্ট করতে চায় বিএনপি’ সিলেটে কমেছে করোনা আক্রান্ত-মৃত্যু সিনোফার্মের আরও ৫৫ লাখ টিকা আসছে রাতে স্পেনে গিয়েই স্বামীকে অচেতন করে সন্তানসহ স্ত্রীর চম্পট! অনুমোদন ছাড়া প্রায় কোটি টাকার গাছ কাটল সিসিক ‘মহানবীর (সা.) আদর্শ অনুসরণের মধ্যেই শান্তি নিহিত’ বাংলাদেশকে আরও ২৫ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র আরিয়ানের জন্য ক্ষতির মুখে সালমান ফেসবুকের নাম পরিবর্তন আসতে পারে অসামাজিক কাজে লিপ্ত, ৯ নারী-পুরুষ গ্রেফতার শান্তি ও মুক্তির সহজ আমল এবার সাবমেরিন থেকে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ উ. কোরিয়ার শনিবার সিলেটের যেসব এলাকায় থাকবে না বিদ্যুৎ

তিন মাসে ২১২ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় রিং আইডি

নতুন সিলেট ডেস্ক:
  • আপডেট : শনিবার, ২ অক্টোবর, ২০২১
তিন মাসে ২১২ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় রিং আইডি - Natun Sylhet

পরিচালক সাইফুল গ্রেফতার

সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম রিং আইডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। শনিবার দুপুরে সিআইডির মিডিয়া কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজাদ রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, শুক্রবার রাজধানীর গুলশান থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তাকে এখন জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে।

জানা যায়, রিং আইডিতে বিনিয়োগ করে প্রতারিত হয়েছেন- এমন অভিযোগে গত ৩০ সেপ্টেম্বর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে রিং আইডির বিরুদ্ধে মামলা করেন এক ব্যক্তি। ওই মামলায় সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সিআইডি জানিয়েছে, কেবল কমিউনিটি জবস খাত থেকেই রিং তিন মাসে ২১২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এর মধ্যে গত মে মাসে ২৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা, জুন মাসে ১০৯ কোটি ১৩ লাখ টাকা ও জুলাই মাসে ৭৯ কোটি ৩৮ লাখ টাকা অবৈধভাবে সংগ্রহ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

রিং আইডি যেন অবৈধভাবে দেশের টাকা বাইরে পাচার করতে না পারে সেজন্য ইতোমধ্যেই তাদের সব ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করতে বাংলাদেশ ব্যাংককে অনুরোধ জানিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজাদ রহমান বলেন, রিং আইডি প্রাথমিকভাবে একটি সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম হিসেবে যাত্রা শুরু করলেও পরবর্তী সময়ে তারা বিভিন্ন সার্ভিস যোগ করে জনগণের কাছে থেকে বিপুল পরিমাণ আমানত সংগ্রহ করে। এসব সার্ভিসের মধ্যে রয়েছে বৈদেশিক বিনিয়োগ, কমিউনিটি জবসসহ বিভিন্ন সার্ভিস, যার আড়ালে এ আমানত সংগ্রহের কার্যক্রম পরিচালনা করে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে জনগণ এ খাতে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করে। বর্তমানে সন্দেহের তালিকায় থাকা বিভিন্ন ই-কমার্স সাইটের মতো তারাও অস্বাভাবিক ডিসকাউন্টে বিভিন্ন প্রোডাক্ট বিক্রি ও ক্রেতাদের কাছে থেকে ই-ওয়ালেটের মাধ্যমে লেনদেন পরিচালনা করছিল।

উল্লেখ্য, রিং আইডিতে বিনিয়োগ করে প্রতারিত একজন ভুক্তভোগী ভাটারা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন। রিং আইডির ১০ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ১০-১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ওই ভুক্তভোগী। শিডিউলভুক্ত হওয়ায় এ মামলাটি সিআইডির সাইবার পুলিশ সেন্টার তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে। তদন্তের ধারাবাহিকতায় সাইবার পুলিশ সেন্টার মামলার অন্যতম অভিযুক্ত মো. সাইফুল ইসলামকে গুলশান থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করে সিআইডির একটি টিম।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102