রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ ::
‘বৈচিত্র্যপূর্ণ সংস্কৃতি এ দেশের অমূল্য সম্পদ’ খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে গবেষণায় গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর ইভ্যালির ওয়েবসাইট-অ্যাপ বন্ধ শেখঘাট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ পরিদর্শনে পরিকল্পনামন্ত্রী আন্তর্জাতিক ডিজাইন প্রতিযোগিতায় রাহুলের স্বর্ণপদক জয়  ৬শ’ কোটিতে ৩২০ কোরিয়ান এসি বাস কিনবে সরকার সৌদি জোটের হামলায় ইয়েমেনে নিহত ১৬০ সিলেটে কাল যেসব এলাকায় থাকবে না বিদ্যুৎ শেখ হাসিনা একজন স্ট্রং ক্লাইমেট ফাইটার-পরিকল্পনামন্ত্রী মহানবীর জীবনাদর্শে মুক্তি নিহিত-শফিকুর রহমান চৌধুরী শাবির নৃবিজ্ঞানের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক জাকারিয়া ছাত্রলীগের কমিটিকে অভিনন্দন জানিয়ে গোলাপগঞ্জে আনন্দ মিছিল সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সাম্প্রদায়িকতা রুখতে হবে-্অ্যাডভোকেট জামান জুমার দিনের সুন্নাত আমল সিলেটে এবার প্লাকার্ড ও ফেস্টুন নিয়ে রাস্তায় ছাত্রলীগ

সর্বকালের সেরা মানব রসুল (সা.)

নতুন সিলেট ডেস্ক :
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৭ অক্টোবর, ২০২১
সর্বকালের সেরা মানব রসুল (সা.) - Natun Sylhet

সর্বকালের সেরা মানব মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ৫৭০ খ্রিস্টাব্দের রবিউল আউয়াল মাসে জন্মগ্রহণ করেন বলে অধিকাংশ ইতিহাসবিদের ধারণা। তাদের এক বড় অংশের মতে তারিখটি ১২ রবিউল আউয়াল। ৪০ বছর বয়সে হজরত মুহাম্মদ (সা.) নবুয়তপ্রাপ্ত হন (৬১০ খ্রি.) এবং হেরা পর্বতের গুহায় তাঁর কাছে প্রথম ওহি নাজিল হয়।

প্রথম প্রত্যাদেশ প্রাপ্তির পর তিনি গভীরভাবে বিচলিত হয়ে পড়লেন। কম্পিত ও ভীতসন্ত্রস্ত হজরত মুহাম্মদ (সা.) তাঁর স্ত্রী বিবি খাদিজাকে (রা.) সব ঘটনা বর্ণনা করলেন। ঘটনা শোনার পর খাদিজা (রা.) বুঝতে পারলেন তাঁর স্বামীর ওপর মহান সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদ বর্ষিত হয়েছে। তিনি তাঁকে সাহস ও উৎসাহ দান করলেন। এরপর তাঁর চাচাতো ভাই ওয়ারাকা-বিন-নওফেলের কাছে এ সংবাদ দেন। ওয়ারাকা ছিলেন তৎকালীন আরবের প্রখ্যাত পন্ডিত। ইহুদি ও খ্রিস্ট ধর্ম সম্পর্কে তাঁকে বিশেষজ্ঞ ভাবা হতো।

এ ঘটনা শুনে তিনি অভিমত ব্যক্ত করলেন যে মুসা (আ.) ও ইসা (আ.) অনুরূপ ঐশীবাণী লাভ করেছিলেন। তাঁর এ উৎসাহসূচক কথাবার্তা ও আশ্বাসের বাণীতে মহানবী (সা.) স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন। কিছুদিন পর মহানবী (সা.)-এর ওপর ওহি নাজিল হলো, ‘হে আমার রসুল! তোমাকে তোমার প্রভু যে সত্য দান করেছেন তা প্রচার কর।’
নবুয়ত প্রাপ্তির পর মহানবী (সা.) বিপথগামী মক্কাবাসীর কাছে ইসলাম প্রচার শুরু করলেন। তিনি আরববাসীকে পৌত্তলিকতা থেকে বিরত হয়ে সত্য ধর্ম গ্রহণের দাওয়াত দিয়ে বললেন, ‘আল্লাহ এক ও অদ্বিতীয়, তিনি স্রষ্টা ও সৃষ্টিকর্তা। তিনিই জীবন দান করেন এবং মৃত্যুর মাধ্যমে আবার তা ফিরিয়ে নেন। তাঁর মতো আর কেউ নেই।’

সর্বপ্রথম মহানবী (সা.) তাঁর অন্তরঙ্গ আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুদের কাছে অত্যন্ত গোপনে ইসলামের দাওয়াত দিলেন। বিবি খাদিজাই (রা.) প্রথম তাঁর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন ও তাঁর প্রচারিত দীন গ্রহণ করলেন। শিগগিরই হজরত আবু বকর, আলী, জায়েদসহ ২০ জন ইসলামে দীক্ষিত হন। তাঁদের মধ্যে আছেন পরবর্তীকালে পারস্য বিজেতা সাদ-বিন-আবি ওয়াক্কাস, জুবাইর ইবনে আল-আওয়াম, ইসলামের তৃতীয় খলিফা ওসমান-বিন-আফফান, পরবর্তীকালে ইসলামের বীর যোদ্ধা তালহা এবং সম্পদশালী ও মহৎ চরিত্রের অধিকারী আবদুর রহমান-বিন-আউফ।

তাদের মধ্যে কয়েকজন ক্রীতদাসও ছিলেন যেমন ইসলামের প্রথম মুয়াজ্জিন হজরত বিলাল, ‘ক্ষুদ্রদেহী অথচ প্রগাঢ় বিশ্বাসী’ নামে খ্যাত হজরতের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সাহাবা আবদুল্লাহ-বিন-মাসুদ প্রমুখ। নবুয়ত লাভের তিন বছর পর (৬১৩ খ্রি.) হজরত মুহাম্মদ (সা.) প্রকাশ্যে ইসলাম প্রচার করার জন্য ওহি পেলেন, ‘এবং তুমি নিজের আত্মীয়স্বজনের কাছে পাপ ও আল্লাহ-দ্রোহিতার অবশ্যম্ভাবী ফল সম্পর্কে সতর্ক করে দাও।’

এরপর মহানবী (সা.) প্রকাশ্যে সাফা পাহাড়ের পাদদেশে একটি সভা আহ্‌বান করেন। পাহাড়ের চূড়ায় দাঁড়িয়ে ঘোষণা করলেন, ‘হে কোরাইশগণ! তোমরা একত্রিত হও, হে কোরাইশগণ! তোমরা একত্রিত হও।’ আল আমিনের এ ঘোষণায় আসন্ন বিপদ ঘনায়মান ভেবে কোরাইশরা পাহাড়ের পাদদেশে সমবেত হলো এবং তাঁকে জিজ্ঞাসা করল- ব্যাপার কী?

তিনি তখন বললেন, ‘আপনারা একটা কথা বিবেচনা করুন, যদি আমি আপনাদের বলি এ পাহাড়ের পেছনে একদল শত্র“ আপনাদের আক্রমণের জন্য অপেক্ষা করছে আপনারা কি আমাকে বিশ্বাস করবেন?’ তারা বলল, ‘হ্যাঁ, কেননা আপনি এমন একজন ব্যক্তি যিনি সারা জীবনে একটাও মিথ্যা কথা বলেননি।’

মহানবী (সা.) বললেন, ‘আমি আপনাদের কঠিন শাস্তির সতর্ককারী, হে আবদুল মুত্তালিব বংশ, হে আবদুল মান্নাফ বংশ, হে জোহরা গোত্র, হে হাইয়েফ গোত্র, হে মাখজুন গোত্র, হে আসাদ গোত্র, আল্লাহ আমাকে আদেশ করেছেন আমি যেন আমার কাছের ও দূরের আত্মীয়স্বজনকে সতর্ক করি। আমি এর জন্য আপনাদের কাছ থেকে কি ইহজীবনে, কি পরজীবনে কোনোরূপ লাভ কামনা করিনি। আমি শুধু আপনাদের বলতে চাই আল্লাহ ছাড়া কোনো উপাস্য নেই।’

হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর চাচা আবু লাহাব বলল, ‘আজ তুমি ধ্বংস হও। তুমি কি এজন্যই আমাদের এখানে ডেকেছিলে!’ আবু লাহাবের এ অভিশাপ উচ্চারণে মহানবী (সা.) মনে অত্যন্ত আঘাত পেলেন। তিনি মুখে কোনো কিছু না বললেও তাঁর পবিত্র মুখের ওপর চরম বিরক্তির ছাপ ফুটে ওঠে। কিন্তু আল্লাহ মহানবী (সা.)-কে ধ্বংস করলেন না। ধ্বংস করলেন, অভিশাপ দিলেন সেই আবু লাহাবকে, আর হজরতকে চরম সান্ত্বনা দিলেন।

ফেরেশতা জিবরাইল (আ.) আল্লাহর বাণী সঙ্গে নিয়ে হাজির হলেন, ‘আবু লাহাবের দুই হাত ধ্বংস হোক এবং সেও ধ্বংস হোক। তার ধন-সম্পদ এবং সে যা অর্জন করেছে তা তার কোনোই কাজে আসবে না। অচিরেই সে লেলিহান অগ্নিতে প্রবেশ করবে।’ আল কোরআন।

এ ঘটনার পর মহানবী (সা.) আল্লাহর একাত্মবাদের মাহাত্ম্য সম্পর্কে এক হৃদয়গ্রাহী বক্তৃতা দেন। সাম্য, মৈত্রী ও বিশ্বভ্রাতৃত্বের দৃঢ়বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে তিনি সবাইকে ইসলাম কবুল করতে অনুরোধ জানান। পরবর্তী চার বছর প্রকাশ্যে ইসলাম প্রচারের ফলে নবদীক্ষিতের সংখ্যা বেড়ে গেল। মক্কার অনেক লোক ওই সময় ইসলাম গ্রহণ করলেন। তাদের অনেকেই ইসলামের পরবর্তী ইতিহাসে খুব প্রসিদ্ধি লাভ করেছিলেন। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নেতৃত্বে পরবর্তীতে মদিনায় হিজরত এবং সেখানে দুনিয়ার প্রথম কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হয়। মক্কা জয় করে ইসলাম আরব ভূমিতে প্রতিষ্ঠিত হয়।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102