বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:২৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::
খালেদার অসুস্থতাকে পুঁজি করে বিএনপি আন্দোলন করছে-প্রধানমন্ত্রী বিশ্বনাথে পুকুরে ডুবে প্রতিবন্ধী যুবতীর মৃত্যু মৌলভীবাজারে ইটভাটা শ্রমিককে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা `কর্মগুনে সবার প্রিয় হয়ে উঠেছেন অ্যাডভোকেট জালাল’ কর্মী প্রেরণে বাংলাদেশ-বসনিয়া সমঝোতা আলোচনায় সিলেটের সাইবার ট্রাইব্যুনালে ঝুমন দাশের জামিন বহাল ভারতে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত: প্রতিরক্ষা প্রধানসহ নিহত ১৩ তাহিরপুর সীমান্তে ভারতীয় রুপিসহ যুবক আটক জাতির পিতার আদর্শে তরুণ প্রজন্মকে প্রস্তুত করতে যুবলীগকে আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ৫৭ দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ওমিক্রন : ডব্লিউএইচও বিয়ের মঞ্চে কনের সিঁথিতে প্রেমিকের সিঁদুর! সিলেটে গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার ভারতে প্রতিরক্ষা প্রধানবাহী হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, নিহত ৪ তাহিরপুরে শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা আ. লীগ জনগণের দল, শেখ হাসিনার সরকার জনগণের সরকার : শিক্ষামন্ত্রী

ওসমানীতে চালু হচ্ছে শ্রবণপ্রতিবন্ধী মূক ও বধির শিশুদের চিকিৎসা

নতুন সিলেট ডেস্ক :
  • আপডেট : মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১
ওসমানীতে চালু হচ্ছে শ্রবণপ্রতিবন্ধী মূক ও বধির শিশুদের চিকিৎসা - Natun Sylhet

সম্পূর্ণ শ্রবণপ্রতিবন্ধী বা জন্মগত মূক ও বধির শিশুদের চিকিৎসার জন্য সিলেটের অভিভাবকদের এতদিন যেতে হতো রাজধানী ঢাকায়। এবার ঢাকার বদলে সিলেটেই এ চিকিৎসা চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আর্থিকভাবে অসচ্ছল ব্যক্তিরা এই চিকিৎসা সুবিধা পাবেন সম্পূর্ণ বিনা পয়সায়।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, আগামী ডিসেম্বর মাসে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ সেবা চালুর প্রস্তুতি চলছে।

জাতিসংঘের এক প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে প্রতিবছর গড়ে ২ হাজার ৬০০ শিশু বধির হয়ে জন্ম নেয়। ফলে সিলেটে এই চিকিৎসাব্যবস্থা চালু হওয়ায় জন্ম থেকে কানে না শোনা এবং কথা বলতে না পারা শিশুদের চিকিৎসায় একটা নতুন দিক উন্মোচিত হচ্ছে।

এ বিষয়ে এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নাক, কান ও গলা বিভাগের প্রধান মনিলাল আইচ বলেন, বাংলাদেশে এক দশক আগেও কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট প্রতিস্থাপন চিকিৎসা প্রচলিত ছিল না। আগে ২৫–৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে বিদেশে এ চিকিৎসা অনেকে করাতেন। অথচ এখন দেশেই সরকারিভাবে তা সম্ভব হচ্ছে। এটি দেশের চিকিৎসাব্যবস্থায় বর্তমান সরকারের একটি বড় ধরনের সাফল্য। দেশে এখন এ চিকিৎসা বাবদ বেসরকারিভাবে ১০–১৫ লাখ টাকা খরচ পড়ে। অথচ সরকার বিনা মূল্যে এ ধরনের চিকিৎসার ব্যবস্থা রেখেছে। সিলেটবাসীর জন্য সুখবর হচ্ছে, ব্যয়বহুল এই চিকিৎসা এখন ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সম্পূর্ণ বিনা পয়সায় করা হবে।

মনিলাল আইচ আরও বলেন, ‘হাসপাতালের নাক, কান ও গলা বিভাগের অধীনে আলাদা একটা ইউনিট স্থাপন করে অস্ত্রোপচার কক্ষের নির্মাণকাজ এখন শেষ মুহূর্তে আছে। সব প্রস্তুতি শেষ করে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে ইউনিট চালুর সম্ভাবনা রয়েছে। যেসব শিশুর বধিরতা আছে, তাদের অভিভাবকদের এখনই হাসপাতালে নাম নিবন্ধনের জন্য আমরা অনুরোধ জানাচ্ছি। গরিব ও নির্বাচিত শিশুদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে এ চিকিৎসা দেওয়া হবে।’

ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, জন্ম থেকে পাঁচ বছর বয়সী যেসব শিশু বধিরতায় ভোগে, এমন শিশুদের চিকিৎসায় কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট প্রতিস্থাপন করার প্রয়োজন পড়ে। বর্তমানে কেবল ঢাকাতেই এ চিকিৎসা হয়। ঢাকার বাইরে এই প্রথম সিলেট ও চট্টগ্রামে সরকারিভাবে এমন চিকিৎসা চালুর জন্য একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। এটি বাস্তবায়ন করছে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়। গত অর্থবছরে সিলেট প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এতে প্রথম দফায় বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ৬ কোটি টাকা। এ প্রকল্পের কাজ চলমান থাকবে এবং ভবিষ্যতে আরও বরাদ্দ দেওয়া হবে।

প্রকল্প বাস্তবায়নে কর্মসূচি পরিচালক হিসেবে রয়েছেন ওসমানী হাসপাতালে নাক, কান ও গলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নুরুল হুদা নাঈম।

তিনি বলেন, কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট হচ্ছে একটি আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন চিকিৎসা পদ্ধতি। দক্ষ ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে শিশুর কানে ইলেকট্রনিক ডিভাইস লাগিয়ে এ চিকিৎসা করে থাকেন।

এ বিষয়ে এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ব্রায়ান বঙ্কিম হালদার বলেন, কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট কার্যক্রম শিগগিরই শুরু হবে। এর মাধ্যমে সিলেটের চিকিৎসাব্যবস্থায় একটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা ঘটবে।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102