শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:২১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::
সিলেটে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা সেই নারী পুলিশ ক্লোজড পৃথিবীকে বাসযোগ্য করে গড়তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশে ভ্যাট নিবন্ধন নিল নেটফ্লিক্স পাবজি খেলতে না পেরে কিশোরের আত্মহত্যা প্রভাবশালী ২৫ নারীর তালিকায় আফগান কিশোরী সিলেটে আ.লীগের বিদ্রোহী আরও ৫ নেতা বহিষ্কার খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সু-চিকিৎসার দাবিতে ছাত্রদলের কাফনের কাপড় পড়ে মিছিল কোন মুসলমান ইসলাম ছাড়া কারও মত গ্রহণ করতে পারে না : পীর সাহেব চরমোনাই লাল কার্ড হাতে নিয়ে রামপুরা রাস্তায় শিক্ষার্থীরা টাঙ্গাইলে বাস-কাভার্ডভ্যান মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক নিহত পূজা-অন্তুর সংসারে বিচ্ছেদের সুর নীলফামারীতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়িতে অভিযান: আটক ৫ নতুন রেকর্ডে চোখ রোনালদোর মালিতে বাসে জঙ্গি হামলা, নিহত ৩১ শাবিতে স্নাতক গণিত অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত

পাপকে ছোট করে দেখার ভয়াবহতা

ধর্ম ডেস্ক :
  • আপডেট : মঙ্গলবার, ২ নভেম্বর, ২০২১
পাপকে ছোট করে দেখার ভয়াবহতা - Natun Sylhet

যে কোনো মন্দ কাজই পাপ। এ পাপকে অবহেলা করা বা কোনো কিছু মনে না করা কিংবা সাধারণ বিষয় মনে করা গুনাহের কাজ। তাই পাপ সম্পর্কে থাকতে হবে সচেতন। অনেকেই আছেন, যারা পাপকে তুচ্ছ মনে করে। পাপ বা গুনাহকে তুচ্ছজ্ঞান করা যাবে কি?

পাপের রয়েছে ভয়াবহ শাস্তি ও কঠিন পরিণতি। সে কারণে পাপ বা গুনাহের কাজ করার সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা জরুরি। আল্লাহ তাআলা ঈমানদার সতর্ক করে পাপ থেকে বেঁচে থাকতে ঘোষণা করেন-

یٰۤاَیُّهَا الَّذِیۡنَ اٰمَنُوۡا تُوۡبُوۡۤا اِلَی اللّٰهِ تَوۡبَۃً نَّصُوۡحًا ؕ عَسٰی رَبُّکُمۡ اَنۡ یُّکَفِّرَ عَنۡکُمۡ سَیِّاٰتِکُمۡ وَ یُدۡخِلَکُمۡ جَنّٰتٍ تَجۡرِیۡ مِنۡ تَحۡتِهَا الۡاَنۡهٰرُ ۙ یَوۡمَ لَا یُخۡزِی اللّٰهُ النَّبِیَّ وَ الَّذِیۡنَ اٰمَنُوۡا مَعَهٗ ۚ نُوۡرُهُمۡ یَسۡعٰی بَیۡنَ اَیۡدِیۡهِمۡ وَ بِاَیۡمَانِهِمۡ یَقُوۡلُوۡنَ رَبَّنَاۤ اَتۡمِمۡ لَنَا نُوۡرَنَا وَ اغۡفِرۡ لَنَا ۚ اِنَّکَ عَلٰی کُلِّ شَیۡءٍ قَدِیۡرٌ

হে বিশ্বাসীগণ! তোমরা আল্লাহর কাছে তাওবাহ কর; বিশুদ্ধ তওবাহ। সম্ভবতঃ তোমাদের প্রতিপালক তোমাদের মন্দ কর্মগুলোকে মোচন করে দেবেন এবং তোমাদেরকে প্রবেশ করাবেন জান্নাতে, যার তলদেশে নদীমালা প্রবাহিত। সেই দিন আল্লাহ তাআলা নবি এবং তাঁর বিশ্বাসী বান্দাদেরকে অপদস্থ করবেন না। তাদের জ্যোতি তাদের সামনে ও ডানে আলোকিত হবে। তারা বলবে, ‘হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদের জ্যোতিকে পূর্ণতা দান কর। আর আমাদেরকে ক্ষমা কর। নিশ্চয়ই তুমি সর্ববিষয়ে ক্ষমতাবান।’ (সুরা তাহরিম : আয়াত 8)

সুতরাং গুনাহকে কখনো হালকাভাবে নেওয়া যাবে না। বরং গুরুত্বের সঙ্গে গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার নিরলস প্রচেষ্টা বিশুদ্ধ তাওবাহ করার চেষ্টা করতে হবে।

মনে রাখতে হবে

সম্মানিত দুই ফেরেশতা সব সময় মানুষের গুনাহ লেখার আগে আল্লাহ আমাদেরকে তাওবার ব্যাপারে অনেক ছাড় দিয়েছেন। হাদিসের বর্ণনা থেকে তা প্রমাণিত-

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘নিশ্চয়ই বামপাশের ফেরেশতা ভূলকারী মুসলিম বান্দা থেকে ছয় ঘন্টা পর্যন্ত কলম উঠিয়ে রাখে। (কারণ গুনাহগার) বান্দা যদি অনুতপ্ত হয় এবং আল্লাহর কাছে ক্ষমা চায় তবে তার গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়; নতুবা একটি গুনাহ লিখা হয়।’ (তাবারানি, বায়হাকি)

মানুষ গুনাহ করবেই। আর গুনাহের কারণেই বান্দা আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করবে। এমন একটি বর্ণনাও এসেছে হাদিসে। তাহলো-

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যার হাতে আমার জীবন! যদি তুমি পাপ করতে না পারো তবে আল্লাহ তোমাকে অস্তিত্ব থেকে সরিয়ে নেবেন এবং তিনি এমন লোকদের দেবেন যারা পাপ করবে এবং আল্লাহর কাছ থেকে ক্ষমা চাইবে এবং তিনি তাদের ক্ষমা করে দেবেন।’ (মুসলিম)

সে কারণে কেউ যদি পাপ বা গুনাহ করে তবে তারা আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইবে। কোরআনের বর্ণনায় বিষয়টি এভাবে এসেছে-

رَبَّنَا فَاغۡفِرۡ لَنَا ذُنُوۡبَنَا وَ کَفِّرۡ عَنَّا سَیِّاٰتِنَا وَ تَوَفَّنَا مَعَ الۡاَبۡرَارِ

‘হে আমাদের রব! তুমি আমাদের পাপসমূহ ক্ষমা কর, আমাদের মন্দ কাজসমূহ গোপন কর এবং মৃত্যুর পর আমাদেরকে পুণ্যবানদের সাথে মিলিত কর।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ১৯৩)

অন্য আয়াতে মহান আল্লাহ তাআলা বান্দাকে আল্লাহর দয়া তথা রহমত থেকে নিরাশ হতে নিষেধ করেছেন। আল্লাহর প্রতি গুনাহ থেকে মুক্তি পেতে প্রচন্ড আশাবাদী হতে বলেছেন এভাবে-

قُلۡ یٰعِبَادِیَ الَّذِیۡنَ اَسۡرَفُوۡا عَلٰۤی اَنۡفُسِهِمۡ لَا تَقۡنَطُوۡا مِنۡ رَّحۡمَۃِ اللّٰهِ ؕ اِنَّ اللّٰهَ یَغۡفِرُ الذُّنُوۡبَ جَمِیۡعًا ؕ اِنَّهٗ هُوَ الۡغَفُوۡرُ الرَّحِیۡمُ

(হে রাসুল! আপনি) ঘোষণা করে দিন (আমার এ কথা), হে আমার বান্দাগণ! তোমরা যারা নিজেদের প্রতি (গুনাহ বা পাপ দ্বারা) জুলুম করেছ, তারা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না; নিশ্চয়ই আল্লাহ সব পাপ মাফ করে দেবেন। নিশ্চয়ই তিনি চরম ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’ (সুরা যুমার : আয়াত ৫৩)

এ ঘোষণা মুমিন বান্দার জন্য, ইবাদতকারী বান্দার জন্য আশার বাণী। তাই বলে গুনাহের ব্যাপারে অবহেলা করা যাবে না। আল্লাহর কাছে ক্ষমা পেতে অনুনয়-বিনয়ের মাধ্যমে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে। আল্লাহর স্মরণাপন্ন হতে হবে। বিশুদ্ধ তাওবাহ করতে হবে।

বর্তমান সময়ের দিকে তাকালে দেখা যায়-

মানুষ আল্লাহকে ভয় করে না। তারা রাত-দিন অসংখ্য গুনাহের কাজ নির্ভয়ে করছে। গুনাহকে কোনো কিছুই মনে করছে না। দুনিয়ার সব কাজ চলছে অথচ নামাজের সময় হলে নামাজ পড়তে হবে; তা জানা সত্ত্বেও মানছে না। নামাজ পড়ছে না। আবার পর্দা করা ফরজ সব নারীরাই জানেন; কিন্তু বাস্তবে ঘটছে কি! কেউই ইসলামের নির্দেশনা মেনে চলছে না বরং হরহামেশা বেপর্দায় চলছে। সমাজের দিকে তাকালে এ রকম অসংখ্য গুনাহকে কিছুই মনে করছে না। অথচ গুনাহকে অবহেলা করা কত মারাত্মক গুনাহ তা কল্পনারতীত।

অনেকেই আগ্রহ ভরে হারাম জিনিসের দিকে নজর দেয় পত্র-পত্রিকায় বা টিভি সিরিয়াল বা সিনেমার দিকে, এমনকি এদের কেউ কেউ যখন জানতে পারে যে এটি হারাম, তখন খুবই রসিকতা করে প্রশ্ন করে, এতে কত গুনাহ রয়েছে? এটি কি কবিরা গুনাহ নাকি সগিহরা গুনাহ? (নাউজুবিল্লাহ)

অথচ ইমাম বুখারি রাহমাতুল্লাহি আলাইহি এ গুনাহকে অবজ্ঞা বা তুচ্ছজ্ঞান করা সম্পর্কে কী হাদিস বর্ণনা করেছেন?

১. হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, তোমরা এমন সব কাজ কর যা তোমাদের দৃষ্টিতে চুলের চেয়েও সূক্ষ্ম। কিন্তু আমরা রাসূলুল্লাহর যুগে এগুলোকে মনে করতাম ধ্বংসকারী।’

২. হজরত ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, একজন মুমিন গুনাহকে এভাবে দেখে থাকে যে, সে যেন এক পাহাড়ের নিচে বসে আছে যা তার মাথার উপর ভেঙ্গে পড়বে। পক্ষান্তরে পাপী তার গুনাহকে দেখে যেন মাছি তার নাকের ডগায় বসেছে, তাকে এভাবে তাড়িয়ে দেয়।

বর্তমান সময়ে যারা গুনাহের সঙ্গে জড়িত তারা কি উল্লেখিত হাদিসের বিষয়টি অনুধাবন করছে। তাছাড়া এরা কি বিষয়টির বিপজ্জনকতা উপলব্ধি করতে পারবে যখন তারা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের এই হাদিসটি পড়া হয-

إيَّاكُمْ وَمُحَقَّرَاتِ الذُّنُوبِ فَإنَّمَا مَثَلُ مُحَقَّرَاتِ الذُّنُوبِ كَمَثَلِ قَوْمٍ نَزَلُوا بِبَطْنِ وَادٍ فَجَاءَ ذَا بِعُودٍ وَجَاءَ ذَا بِعُودٍ حَتَّى حَمَلُوا مَا أنْضَجُوا بِهِ خُبْزَهُمْ وَإنَّ مُحَقَّرَاتِ الذُّنُوبِ مَتَى يَأخُذُ بِهَا صَاحِبُهَا تُهْلِكُهُ” وَفِي رِوَايَةٍ: “إيَّاكُمْ وَمُحَقَّرَاتِ الذُّنُوبِ فَإنَّهُنَّ يَجْتَمِعْنَ عَلَى الرَّجُـلِ حَتَّى يُهْلِكَنَّهُ

‘তোমরা নগণ্য ছোট ছোট গুনাহ থেকে সাবধান হও! নগণ্য ছোট ছোট গুনাহগুলোর উদাহরণ হল ঐ লোকদের মত যারা কোনো মাঠে বা প্রান্তরে গিয়ে অবস্থান করল এবং তাদের প্রত্যেকেই কিছু কিছু করে লাকড়ি (জ্বালানি কাঠ) সংগ্রহ করে নিয়ে এলো। শেষ পর্যন্ত এতটা লাকড়ি তারা সংগ্রহ করল যা দিয়ে তাদের খাবার পাকানো হল। নিশ্চয়ই নগণ্য ছোট ছোট গুনাহতে লিপ্ত থাকা ব্যক্তিদেরকে যখন সেই নগণ্য ছোট ছোট গুনাহগুলো গ্রাস করবে (পাকড়াও করবে) তখন তাদেরকে ধ্বংস করে ফেলবে।’

অন্য এক বর্ণনায় এসেছে যে, ‘তোমরা নগণ্য ছোট ছোট গুনাহ থেকে সাবধান হও; কেননা সেগুলো মানুষের কাঁধে জমা হতে থাকে এরপর তাকে ধ্বংস করে দেয়।’ (মুসনাদে আহমদ)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, গুনাহ নিয়ে অবজ্ঞা কিংবা তুচ্ছজ্ঞান করা কোনোভাবেই উচিত নয়। গুনাহের কাজ থেকে দূরে থাকা খুবই জরুরি। গুনাহমুক্ত জীবন গড়ে দুনিয়া ও পরকালের কল্যানে নিজেদের নিয়োজিত করা জরুরি।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে গুনাহ হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাওবাহ করে নিজেদের শুধরিয়ে নেওয়ার তাওফিক দান করুন। গুনাহমুক্ত জীবন গঠনের তাওফিক দান করুন। আমিন।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102