রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০২:০৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ ::
দেশে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সু-চিকিৎসার দাবিতে জেলা বিএনপির লিফলেট বিতরণ সিলেটের ৭৭ ইউনিয়নে চলছে ভোটগ্রহণ পঞ্চম ধাপে সিলেটের আরও ৭৫ ইউপিতে ভোট ৫ জানুয়ারি  রাত পোহালে ৭৭ ইউপিতে ভোট: ঝুঁকিপূর্ণ সিলেটের ১৩৮ কেন্দ্র দোয়ারায় বসতঘরে অগ্নিকাণ্ড, দুই লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি নূরল আমীন এর ‘ভাটি বাঙলার উচ্ছ্বাস’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন হবিগঞ্জে ১৩০ টাকায় পুলিশের চাকরি পেলেন ৪৪ জন কমলগঞ্জে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের করোনা টিকা প্রদান শুরু খালেদা জিয়ার সুস্থতায় ছাত্রদলের শিরণী বিতরণ ‘দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে যোগাযোগ স্থগিত করছে বাংলাদেশ’ বিদ্রোহী কবিতার শতবর্ষে আবৃত্তি উৎসবের লোগো উন্মোচন তাহিরপুর সীমান্তে গাঁজা-মদের চালানসহ আটক ৩ শাবিতে টিকার দ্বিতীয় ডোজের কার্যক্রম শুরু ব্যালন ডি’অর মেসির হাতেই?

শাবিতে স্টান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক-তরুপল্লব’র বৃক্ষরোপণ

নতুন সিলেট প্রতিবেদক :
  • আপডেট : শনিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২১
শাবিতে স্টান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক-তরুপল্লব’র বৃক্ষরোপণ - Natun Sylhet

সবুজ ক্যাম্পাসকে আরও সবুজায়ন করতে স্টান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক এবং প্রকৃতি ও পরিবেশ বিষয়ক সংগঠন ‘তরুপল্লব’র উদ্যোগে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বনায়ন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। এ কর্মসূচির আওতায় দেশে বিলুপ্ত প্রায় এমন ফলজ, বনজ, ঔষধিসহ বিভিন্ন উপকারী বৃক্ষরোপণ করা হয়।

শনিবার (১৩ নভেম্বর) সকাল ১০টায় ড. এম ওয়াজেদ মিয়া আইআইসিটি ভবন সংলগ্ন এলাকায় এ বনায়ন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

এসময় উপাচার্য বলেন, ক্যাম্পাস সবুজায়ন করতে আমরা বিভিন্ন পদেক্ষপ নিয়েছি। এর মধ্যে সম্প্রতি আমরা বন অধিদপ্তরের সহায়তায় ক্যাম্পাসে ত্রিশ হাজারের অধিক গাছ লাগিয়েছি। আগামীতে আরও বৃক্ষরোপনের পরিকল্পনা করেছে। ক্যাম্পাস সবুজায়নে স্টান্ডার্ড চার্টার্ড বাংক ও প্রকৃতি বিষয়ক সংগঠন তরুপল্লবের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই।

উপাচার্য আরও বলেন, শিক্ষা, গবেষণা, উদ্ভাবন, আইআইসিটিসহ সকল দিক দিয়ে শাবি দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়। কোন ধরণের জটিলতা নেই আমাদের ক্যাম্পাসে।

তবে চলমান ১২’শ কোটি টাকার প্রকল্পের গুণগত মান নিশ্চিত, বিভাগগুলোর জন্য পর্যাপ্ত ল্যাবের ব্যবস্থা, ক্যাম্পাস আধুনিকায়ন, ওয়েবসাইট আপডেট করে আন্তজার্তিক মহলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেঙ্কিংয়ে এগিয়ে যাওয়া আমাদের বর্তমান চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ দিকে চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলায় বিভিন্ন পদক্ষেপের কথাও জানান উপাচার্য।

বৃক্ষরোপণ পরবর্তী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সম্মেলন কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও স্টান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংকের প্রতিনিধি দলের মধ্যে এক মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয় ও স্টান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংকের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নে বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করা হয়।

এ সময় অউপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম, ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদ, রিসার্চ সেন্টারের পরিচালক অধ্যাপক ড. এস এম সাইফুল ইসলাম, আইআইসিটির পরিচালক অধ্যাপক ড. এম জহিরুল ইসলাম, এপ্লায়েড সায়েন্সেস এন্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মুশতাক আহমেদ, ফিজিক্যাল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. রাশেদ তালুকদার, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক দিলারা রহমান, লাইফ সায়েন্সেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. কামরুল ইসলাম, এগ্রিকালচারাল এন্ড মিনারেল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. রোমেল আহমেদ, ব্যবস্থাপনা ও ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. খাইরুল ইসলাম, প্রক্টর ড. মো. আলমগীর কবীর, রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেনসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও কর্মকর্তাবৃন্দ।

এছাড়া স্টান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের হেড অফিসের ব্যান্ড এন্ড মার্কেটিংয়ের কান্ট্রি হেড অব কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স বিটপী দাস চৌধুরী, সিলেটের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক, ব্যাংক কর্মকর্তা হাসান আব্দুল মান্নান, সৈয়দ আহমেদ খান, প্রতিমা বৈরাগী, দীপক কুমার দাস, সৈয়দ মুশফিকুল ইসলাম। এছাড়া অনুষ্ঠানে প্রকৃতি ও পরিবেশ বিষয়ক সংগঠন ‘তরুপল্লব’র সাধারণ সম্পাদক মোকারম হোসেন উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে স্টান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের হেড অফিসের ব্যান্ড এন্ড মার্কেটিংয়ের কান্ট্রি হেড অব কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স বিটপী দাস চৌধুরী বলেন, আমরা আধুনিক ও আন্তজার্তিক মানের ব্যাংকিং, বনায়ন, শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, গবেষণাসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূখী কর্মসূচিতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে কাজ করে যাচ্ছি। শাবির সাথে আমাদের পথচলা শুরু হয়েছে, আগামীতেও সে সম্পর্ক বজায় রেখে চলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

অনুষ্ঠানের সমন্বয়ক ও শাবির ফরেস্ট্রি এন্ড এনভাইরনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের অধ্যাপক ড. আবু সাইদ আরফিন খান বলেন, আমাদের দেশে যে উদ্ভিদ ও গাছ হারিয়ে যাচ্ছে তা ফিরিয়ে আনতে আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশ কিছু গাছ লাগানো হয়েছে যা একেবারেই বিরল হয়ে পয়েছে। এছাড়া বিশ^বিদ্যালয়ে আমরা জারুল, সোনালু, কৃষ্ণচুড়া গাছের একটা এভিনিউ করতে চাচ্ছি, যাতে ফুলের উৎসব করা সম্ভব হয়। বিলুপ্তপ্রায় গাছগুলো ফিরিয়ে আনতে স্টান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, তরুপল্লব ও শাবি প্রশাসনের সহযোগিতায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন তিনি।

শেয়ার করুন...

এই ক্যাটাগরীর অন্যান্য সংবাদ...

আমাদের সাথে ফেইসবুকে সংযুক্ত থাকুন

© নতুন সিলেট মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD
themesba-lates1749691102